শহরেই চলছিল নকল কান্ট্রি স্পিরিটের কারবার, আবগারি হানা,ধৃত এই চক্রের দুই পান্ডা,আটক প্রচুর জাল মদের বোতল।

শহরেই চলছিল নকল কান্ট্রি স্পিরিটের কারবার, আবগারি হানা,ধৃত এই চক্রের দুই পান্ডা,আটক প্রচুর জাল মদের বোতল।
X

বাঁকুড়া২৪X৭প্রতিবেদন : শহরেই নকল কান্ট্রি স্পিরিট বানানো চলছিল পুরোদমে। বাজারের জনপ্রিয় ব্যান্ডের নকল মদ তৈরী করে তা বিক্রি হত শহর জুড়ে। এই নকল মদ খেয়ে বিষক্রিয়ায় যেমন মৃত্যুর আশঙ্কা রয়েছে,পাশাপাশি সরকারি রাজস্বও মার খাচ্ছিল। বাঁকুড়া জেলা আবগারি দপ্তর গোপন সুত্রে খবর পেয়ে শহরের লালবাজার বাইপাস রোডের নিউ জয়গুরু মোটর গ্যারেজে হানা দিয়ে এই চক্রের দুই পান্ডাকে ধরে ফেলে।


সেই সাথে প্রায় ৯০ বোতল নকল মদ, স্পিরিট, জাল হলগ্রাম,ছিপি,কিছু কার্টুন,কনটেইনার এবং দুটি মোটর বাইক বাজেয়াপ্ত করে আবগারি দপ্তর। দীর্ঘদিন ধরে এই জাল মদের কারবার চলছিল শহরের বুকেই। মুলত শহর ও শহর লাগোয়া হাইওয়ের লাইন হোটেল এবং ধাবা গুলিতে এই নকল মদ বিক্রি করত চক্রটি।

পাশাপাশি,শহরের বস্তি এলাকায় এই চক্রটি নিজেদের কিছু প্যাডেলার সিন্ডিকেটও বানিয়েছিল। যাতে করে, এই জাল মদের কারবার শহর জুড়ে তাড়াতাড়ি ছড়ানো যায়। দেখতে হুবহু চলতি ব্যান্ডের কান্ট্রি স্পিরিটের বোতলের মতো। বিশ্বাস অর্জনে লাগান হত নকল হলগ্রামও। ফলে, এক পলকে আসলের সাথে নকলের তফাৎ ধরাই যেত না। তার ওপর স্বাদও উনিশ বিশ। তাই আসলের তুলনায় অনেক কমদামে এই নকল মদ কিনে তাা বেশী মুনাফায় বেচার লোভে হোটেল ব্যবসায়ীরা এই নকল মদের কারবারে আকৃষ্ট হচ্ছিলেন। তাই অল্পদিনেই নকল মদের ব্যবসা শহরে রমরমিয়ে চলছিল। সেই খবর সোর্স মারফত জানতে পেরেই অভিযানে নামে বাাঁকুড়া জেলা আবগারি দপ্তর।এখন আবগারি দপ্তর এই জাল মদ চক্রের জাল কতটা বিস্তৃত ছিল শহর জুড়ে তা খতিয়ে দেখছে।

👁️দেখুন 🎦ভিডিও। 👇



Next Story