বাঁকুড়া জেলা জুড়ে বাড়ছে জল-যন্ত্রণা! হাটু-জলে বন্দী রামকৃষ্ণ পল্লী,ক্ষোভে ফুঁসছেন বাসিন্দারা।

বাঁকুড়া জেলা জুড়ে  বাড়ছে জল-যন্ত্রণা! হাটু-জলে বন্দী রামকৃষ্ণ পল্লী,ক্ষোভে ফুঁসছেন বাসিন্দারা।
X

বাঁকুড়া২৪X৭প্রতিবেদন : জল যন্ত্রণা বাড়ছে জেলা জুড়ে! গতকালের রাতের বৃষ্টির জেরে জেলার দ্বারেকেশ্বর, গন্ধেশ্বরী,শিলাবতী,কংসাবতী,বিড়াই সহ বিভিন্ন নদীগুলোর জলস্তর যেমন বাড়ছে,তেমনি নিচু এলাকা এবং যে সব জায়গায় জল নিকাশির বেহাল দশা সেই সব এলাকা জলমগ্ন হওয়ায় ছন্দ হারিয়েছে স্বাভাবিক জীবনযাত্রা।


কোভিডে জেরবার অবস্থা সামাল দেওয়াই যেখানে বাড়ো চ্যালেঞ্জ হয়ে দাঁড়িয়েছিল সেখানে নুতন করে জল - যন্ত্রণার সাথে মোকাবিলা করতে গিয়ে কোভিড সতর্কতা বিধিও শিকেয় উঠেছে। বাঁকুড়া পুর শহরের ১৮,১৬,২৩ প্রভৃতি ওয়ার্ড সহ একাধিক এলাকায় ঘরে,ঘরে জল ঢোকার খবর মিলেছে। বাঁকুড়া শহর লাগোয়া জুনবেদিয়া সংলগ্ন রামকৃষ্ণ পল্লীর একেবারে বেহাল দশা।

গন্ধেশ্বরী ফুঁসতেই একানকার একটি জোড়ের জল উপচে পড়ার পাশাপাশি নিকাশী ব্যবস্থা ভেঙ্গে পড়ায় পুরো এলাকা জলবন্দি। প্রায় এক হাটু জলের তলায় এলাকার বসতি। ঘরে,ঘরে জল ঢোকার বিরাম নেই। ফলে ক্ষোভে ফুঁসছেন এলাকার বাসিন্দারা।রামকৃষ্ণপল্লী জলমগ্ন হওয়ার পাশাপাশি ইন্দ্রপ্রস্ত, পলাশতলা এলাকাতেও জল ঢুকে পড়েছে বসত বাড়ীতে। মুলত শহর ও শহর লাগোয়া পাড়া গুলির অপরিকল্পিত নিকাশি ব্যবস্থা,আর শহরের দুই নদী দ্বারকেশ্বর, ও গন্ধেশ্বরীর দিন,দিম নাব্যতা হারানোয় অল্প বৃষ্টিতেই জল যন্ত্রণার শিকার হচ্ছেন বাসিন্দারা। তাই নুতন করে নিকাশি ব্যবস্থার উন্নতি না হলে ফি বছর বর্ষার জলছবি বদল হবেনা তা বলাই বাহুল্য।

👁️দেখুন 🎦 ভিডিও। 👇



Next Story